ডাঃ এস জামান পলাশ

জামান হোমিও হল

মুক্তিযোদ্ধা মার্কেট, নীচ তলা শপথ চত্বর, কালীবাড়ী মোড, চাঁদপুর।

ই-মেইলঃ dr.zaman.polash@gmail.com

মোবাইল

01711-943435,
01670- 908547,
01670- 908547

শিরোনাম
চিকিৎসা যেখানে শেষ সেখানেই আমার শুরু ” ক্যান্সারসহ যে কোনো জটিল কঠিন রোগের চিকিৎসা অপারেশান ছাড়া করা হয়।
হাইড্রোসিল
টেস্টিস বা অণ্ডকোষ হচ্ছে পরুষ প্রজনন অঙ্গ। এখানেই স্পার্ম বা শুক্রাণু তৈরি হয় এবং এই স্পার্ম বা শুক্রাণুর মেয়েদের ডিম্বাণুর মিলনের ফলে সন্তানের জন্ম হয়। এই টেস্টিসের সংখ্যা দুটি। এর জন্ম পেটের ভেতর টেস্টিসদ্বয় শিশুর মায়ের পেটে বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে নিচের দিকে নামতে থাকে এবং সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার আগেই অণ্ডকোষ (স্ক্রটাম) থলিতে অবস্থান নেয়।
টেস্টিসের বিভিন্ন প্রকার রোগ হয়। তার মধ্যে হাইড্রোসিল একটি কমন অসুখ।
হাইড্রোসিল কি :
টেস্টিস বা অ-কোষের দুই আবরণের মাঝে পানি জমলে তাকে হাইড্রোসিল বলে। বিভিন্ন কারণে হাইড্রোসিল হতে পারে। যেমন :
১। জন্মগত হাইড্রোসিল।
২। টেস্টিসের ইনফেকশনের জন্য হতে পারে।
৩। গোদরোগ বা ফাইলারিয়াসিস।
৪। টেস্টিসের টিউমার থাকলেও তার কারণে হাইড্রোসিল হতে পারে।
১। জন্মগত হাইড্রোসিল :
শিশুর জন্মের সময় থেকে টেস্টিসের ফোল নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। এই হাইড্রোসিলের সঙ্গে হারনিয়াও থাকে। ধীরে ধীরে হাইড্রোসিল বড় হতে থাকে। পেটের সঙ্গে যোগাযোগ থাকে বলে শুয়ে থাকলে অদৃশ্য হয়ে যায়। এই হাইড্রোসিল চিকিৎসা করা অত্যন্ত জর“রী কারণ এর সঙ্গে হার্নিয়ার সংযোগ থাকে।
২। ইনফেকশনের জন্য হাইড্রোসিল :
টেস্টিসের ইনফেকশন হলে এটাকে ইপিডিডাইমো অরকাইটিস বলে। এই ইনফেকশন সাধারণত যৌনবাহিত রোগ। এই জন্য যুবক বয়সেই এই হাইড্রোসিল দেখা যায়। টেস্টিসে প্রচণ্ড ব্যথা ও ফুলে যায় সঙ্গে বেশ জ্বর ও ব্যথা থাকে। টেস্টিসে এত ব্যথা হয় যে রোগী স্বাভাবিক চলাফেরা করতে পারে না। সাধারণত প্রস্রাবে জ্বালা পোড়া থাকে। এ্যান্টিবায়োটিক, ব্যথানাশক ওষুধ ও বিশ্রাম এই রোগের জন্য অত্যন্ত জর“রী। সময়মতো চিকিৎসা না হলে টেস্টিসে ফোঁড়া হয়ে যেতে পারে।
৩। টিউমারের জন্য হাইড্রোসিল :
এই ধরনের হাইড্রোসিল অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ এ ধরনের হাইড্রোসিল রোগীর কোন প্রকার কষ্ট হয় না। শুধু টেস্টিসের ফোলা আর কিছু নয়।
৪। হাইড্রোসিল হলে কি জটিলতা হতে পারে :
ক) হাইড্রোসিল বড় হয়ে চলাফেরায় অসুবিধা হতে পারে।
খ) দৈহিক মিলনে প্রতিবন্ধকতার/বাধা সৃষ্টি করতে পারে।
গ) ক্যান্সারের কারণে হাইড্রোসিল হলে জীবন বিপন্ন হতে পারে।
ঘ) জন্মগত হাইড্রোসিলের হারনিয়াও থাকে। সেই ক্ষেত্রে হারনিয়ার জন্য মৃত্যুর ঝুঁকি হতে পারে।
ঙ) ইনফেকশনের কারণে হাইড্রোসিল হলে টেস্টিসে পুঁজ জমতে পারে এবং
চ) প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যেতে পারে।
অতএব, এই ধরনের সমস্যা হলেই অভিজ্ঞ সার্জনকে দেখিয়ে সঠিক চিকিৎসা নিন।