ডা.এস. জামান পলাশ

জামান হোমিও হল

মুক্তিযোদ্ধা মার্কেট, নীচ তলা শপথ চত্বর, কালীবাড়ী মোড, চাঁদপুর।

ই-মেইলঃ dr.zaman.polash@gmail.com

মোবাইল

01711-943435,
01670- 908547,
01919 - 943435

শিরোনাম
চিকিৎসা যেখানে শেষ সেখানেই আমার শুরু ” ক্যান্সারসহ যে কোনো জটিল কঠিন রোগের চিকিৎসা অপারেশান ছাড়া করা হয়।
হোমিওপ্যাথির জনপ্রিয়তা
(১) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী হোমিওপ্যাথি পৃথিবীর সকল দেশেই ব্যাপকভাবে প্রচলিত। হোমিওপ্যাথি এখন দ্বিতীয় জনপ্রিয় চিকিৎসাব্যবস্থা।
(২) হোমিওপ্যাথির এই জনপ্রিয়তা গত ৩০ বছর ধরে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং আগামী বছরগুলোতে বিশ্বব্যাপী এর জনপ্রিয়তা প্রতি বছর ২০% হারে বৃদ্ধি পাবে।
(৩) হাজার হাজার খ্যাতনামা ব্যক্তিত্ব গত ২০০ বছর ধরে হোমিও চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করেছেন।
(৪) খ্যাতনামা ব্যক্তিত্ব যারা হোমিও চিকিৎসা নিয়েছেন তাদের মধ্য অন্যতম হলেন – লেখক Charles Dickens, উইলিয়াম থ্যাকারে, George Bernerd Shaw, শিল্পী রেনয়ের, ভ্যান গগ, মনেট এবং গজিন, কম্পোজার বিটোফেন, চপিন ও স্ক্রম্যান। ভারতে হোমিওপ্যাথির প্রবেশ ঘটে ১৮৩৯ সালে আজ যেখানে ৪০০,০০০ (চার লক্ষ) রেজিষ্ট্রেশনপ্রাপ্ত হোমিওপ্যাথ। প্রতি বছর ভারতে ১৩,০০০ (তের হাজার) নতুন হোমিও ডাক্তার যুক্ত হচ্ছেন। মহাত্মা গান্ধী এবং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হোমিওপ্যাথির অন্যতম পৃষ্ঠপোষক ছিলেন।
(৫) ইউরোপের অনেক রাজ পরিবার হোমিও চিকিৎসার উপর নিরভরশীল। Queen Elizabeth ii হোমিওপ্যাথি ব্যতিত অন্য কোন চিকিৎসা গ্রহণ করেন না এবং কোথাও ভ্রমণে গেলে সাথে ব্যক্তিগত হোমিও চিকিৎসক ও হোমিও ঔষধ নিতে কখনও ভোলেন না।
(৬) ১০০ মিলিয়ন ইউরোপীয়ান আজ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহণ করেন যা মোট ইইউ জনসংখ্যার ২৯%।
(৭) ৬৫% ইউরোপিয়ান বলেছেন যে, তারা অতিতে কখন না কখনও হোমিওপ্যাথিক ঔষধ ব্যবহার করেছেন এবং তার ৪৫% বলেছেন যে তারা এ চিকিৎসায় খুবই সন্তুষ্ট এবং প্রয়োজন হলে পুণরায় হোমিও চিকিৎসা নেবেন।
(৮) এক-তৃতীয়াংশ এর অধিক ফরাসী হোমিও চিকিৎসা নেন। ফ্রান্সের প্রায় সকল ঔষধের দোকানে হোমিও ঔষধ পাওয়া যায়। ২০০৪ সালের জরিপ অনুযায়ী ৬২% প্রেগন্যাট মহিলা হোমিও চিকিৎসা নিতেন। ৭০% ফ্রেন্স ডাক্তার এ্যালোপ্যাথিকের পাশাপাশি হোমিও চিকিৎসা দিয়ে থাকেন এবং তারা একে ফলপ্রসু মনে করেন। ২৫,০০০ ডাক্তার শুধু হোমিও ঔষধ প্রেসক্রাইব করেন।
(৯) Germany তে ২০% চিকিৎসক হোমিওপ্যাথির সাহায্যে রোগীকে আরোগ্য করেন।
(১০) নেদারল্যান্ড এ ৪৭% ডাক্তার হোমিওপ্যাথির সাহায্যে রোগীকে আরোগ্য করেন।
(১১) ২০০৮ সালে টিজিআই এর জরিপ পরিচালনায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শহুরে জনসংখ্যার কত ভাগ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা গ্রহণ করেন সে ব্যাপারে সমীক্ষা চালানো হয়েছিল। সেখানে দেখা যায়- ভারতে ৬২%, ব্রাজিলে ৫৮%, সৌদি আরবে ৫৩%, চিলিতে ৪৯%, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৪৯%, ফ্রান্স- এ ৪০%, দক্ষিণ আফ্রিকায় ৩৫%, রাশিয়ায় ২৮%, Germany তে ২৭%, আজেটিনায় ২৫%, হাঙ্গেরীতে ২৫%, যুক্তরাষ্ট্রে ১৮%, যুক্তরাজ্যে ১৫% লোক হোমিওপ্যাথির পক্ষে রায় দিয়েছেন।
হোমিওপ্যাথির ২০০ বছরের সফলতাকে আধুনিক মিডিয়া প্রচার করতে অনিচ্ছুক। আর এর পিছনের মদদদাতা হলো মাল্টিবিলিয়ন ডলার ফামাসিউটিক্যাল কোম্পানীগুলো। হোমিওপ্যাথিক ঔষধ যে কাজ করে এই সত্যটি জনসমক্ষে প্রকাশ হোক এটা ফামাসিউটিক্যাল কোম্পানীগুলো কখনও চায়না। বাংলাদেশের প্রকৃত চিত্রটিও এর ব্যতিক্রম নয়।